ত্রিপুরার সংখ্যালঘুদের আস্থা BJP?

Share

গতকাল রাজ্যে এলেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ, প্রায় ৬০ হাজার পৃষ্টাপ্রমুখদের নিয়ে ছিলো সম্মেলন, রাজ্যের প্রতিটি বুথ থেকে পৃষ্ঠাপ্রমূখরা এসে ভিড় জমালেন রাজধানী আগরতলার স্বামী বিবেকানন্দ ময়দানে(আস্তাবল ময়দান)।
উপস্থিত ছিলেন উত্তর পূর্ব ভারতের BJP এর হাইপ্রোফাইল নেতারা ও। ছিলেন হীমন্ত বিশ্ব শর্মা, সুনীল দেওধর, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব, রাজ্য ভারতীয় জনতা পার্টির সহ সভাপতি সুবল ভৌমিক, রাজ্য সম্পাদিকা প্রতিমা ভৌমিক থেকে শুরু করে অন্যান্য নেতৃবৃন্দরা।
সভায় মুখ্য আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু ছিলো অমিত সাহের বক্ত্যব্য এবং মুখ্যমন্ত্রী দ্বারা সকল পৃষ্ঠাপ্রমুখদের শপথ বাক্য পাঠ। সকল পৃষ্ঠাপ্রমুখ মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী একসাথে ময়দানে হাতে মোমবাতি ধরে জ্বালিয়ে শপথবাক্য পাঠ করলেন। সবার চূখে যেনো বিগতদিনের স্মৃতি ফুটে উঠেছিলো।
কিন্তূ একই দিনে একটা বিরল দৃশ্য ধরা পড়লো ভারতীয় জনতা পার্টির এক কর্মীর মোবাইলের কেমেরায়, এক মুসলমান ভাজপা কর্মী তার নামাজ আদা করছেন আস্তাবল ময়দানে হাজার হাজার ভাজপা সমর্থকদের মাঝখানে।
একটি হিন্দুত্ববাদী দল বলে পরিচিত ভাজপার সম্মেলনে এরকম দৃশ্য আপনার ভাজপার প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি বদলে দিতে পারে।
ত্রিপুরা তে ২০১৬ থেকেই তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের নেতৃত্বাধীন বামফ্রন্ট সরকার ভাজপার ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা অনুধাবন করতে পেরে অত্যন্ত সুকৌশলে ভাজপার বিরুধ্বে মুসলমান বিরুধী এক আবহাওয়া প্রস্তুত করতে সক্ষম হয়েছিলো, যার ফলস্বরূপ রাজ্যের ৯৮% বেশী মুসলমান ভোটার ভাজপা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলো ।
এমনও প্রচার হয়েছিল ভাজপা এলে মুসলমানরা তাদের পছন্দমত খাবারও খেতে পারবে না। কিন্তূ ত্রিপুরায় ভাজপা সরকারের ৯ মাস পূর্ণ হলেও মুসলমানদের উপর কোনরকম আক্রমণ বা বিধিনিষেধ আরোপ হয়নি। বরঞ্চ আগের থেকেও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বসবাস করছে তারা, রাজ্যের অধিকাংশ মুসলমানই এখন ভাজপা সমর্থক।

One thought on “ত্রিপুরার সংখ্যালঘুদের আস্থা BJP?

  1. “রাজ্যের অধিকাংশ মুসলমানই এখন ভাজপা সমর্থক।”…. তা সত্যি। কিন্তু ভোটবাক্সে এর প্রমাণ পাওয়া যাবে তো ???

Leave a Reply